মে 20, 2022

Disha Shakti News

New Hopes New Visions

অ্যাজমা-রোগীদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম


নিজস্ব সংবাদদাতা : শীত মানেই হাঁপানির সমস্যা আরও জাঁকিয়ে বসবে। হাঁপানি হয় মূলত শ্বাসনালীতে প্রদাহের কারণে। দীর্ঘকালীন প্রদাহের ফলে শ্বাসনালীর স্বাভাবিক ব্যস কমে যায় এবং সংবেদনশীলতা বাড়ে। ফলে ফুসফুসের ভিতর বায়ু ঢোকা ও বেরনোর পথ সংকীর্ণ হয়ে যায়। আর যদি সঠিক চিকিত্সা না হয় শ্বাসনালী পুরোপুরি অবরুদ্ধ হয়ে মৃত্যু পর্যন্ত ঘটতে পারে। হাঁপানি যেহেতু শ্বাসযন্ত্রেরই রোগ আর কোভিড সংক্রমণে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটারি সিন্ড্রোম দেখা দেয়, তাই হাঁপানি রোগীদের নিয়ে এতদিন চিন্তা বেশিই ছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণা এই ধারণা বদলে দিয়েছে। অ্যাজমায় আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কম। সম্প্রতি এমনই দাবি করল এক সমীক্ষা। আর যদি কোনওভাবে কোভিড সংক্রমণ ধরে তাহলেও মৃত্যুর ঝুঁকি কম। বরং দেখা গেছে, অ্যাজমার রোগীদের কোভিডে মৃত্যুহার তুলনায় কম। মার্কিন গবেষণায় এই নতুন তথ্য উঠে এসেছে। বিজ্ঞানীদের গবেষণার রিপোর্ট ছাপা হয়েছে ‘অ্যালার্জি অ্যান্ড ক্লিনিকাল ইমিউনোলজি’ জার্নালে। বিভিন্ন হাসপাতাল ও নার্সিংহোমে ভর্তি রোগীদের উপর সমীক্ষা চালিয়ে প্রাথমিকভাবে এই গবেষণার রিপোর্ট সামনে এসেছে ।প্রায় ৩৭ হাজার অ্যাজমার রোগীদের কোভিড টেস্ট করা হয়েছিল। রিয়েল টাইম আরটি-পিসিআরেই নমুনা পরীক্ষা হয়েছিল যাতে সঠিক রেজাল্ট পাওয়া যায়। তাতে দেখা গেছে ৩৭ হাজারের মধ্যে মাত্র হাজার দুয়েকের কোভিড ধরা পড়েছে। তাও ভাইরাল লোড বেশি খুব কম জনের মধ্যেই। এই ২,২৬৬ জন করোনা-আক্রান্তের মধ্যে আবার ৬.৭৫ শতাংশ অর্থাত্ মাত্র ১৫৩ জনের অ্যাজমা ছিল। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখলে বোঝা যায় যাঁদের আগে থেকে অ্যাজমা রয়েছে, তাঁদের শরীরে করোনাভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা ও প্রবণতা অনেকটাই কম। তবে, এ নিয়ে আরও বিস্তারিত পরীক্ষা-নিরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে বলে জানিয়েছেন সমীক্ষার সঙ্গে যুক্ত গবেষকরা।সমীক্ষা সূত্রে জানা গিয়েছিল, অ্যাজমা-রোগীদের ক্ষেত্রে যাঁরা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা বা মেকানিক্যাল ব্রিদিং অ্যাসিট্যান্সেরও প্রয়োজন পড়েনি।

Share this News
error: Content is protected !!