মে 20, 2022

Disha Shakti News

New Hopes New Visions

রায়দিঘিতে শোভন -বৈশাখী -দেবশ্রীর বাক্য যুদ্ধ

দলে যোগ দিতে গিয়ে নয়াদিল্লির অশোক রোডে বিজেপি-র সদর দফতরে তাঁকে দেখে ক্ষুন্ন হয়েছিলেন সবান্ধবী শোভন চট্টোপাধ্যায়। এতটাই যে, বিজেপি দফতরে গিয়েও তাঁর আপত্তিতে বাংলা ছবির নামী অভিনেত্রী তথা তৃণমূল বিধায়ককে দিল্লি থেকে ফিরে আসতে হয়েছিল শূন্যহাতে। তদবধি দেবশ্রী রায়ের যোগ দেওয়া হয়নি বিজেপি-তে। জনশ্রুতি: দেবশ্রীকে বিজেপি দফতরে দেখে ক্ষুন্ন হয়েছিলেন শোভন-বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সেই নাটকে সম্ভবত যবনিকাপাত হল বৃহস্পতিবার। যখন দেবশ্রীর বিধানসভা কেন্দ্র রায়দিঘিতে গিয়ে শোভন সরাসরি ক্ষমা চাইলেন গত বিধানসভা ভোটে দায়িত্ব নিয়ে দেবশ্রীকে জেতানোর জন্য প্রকাশ্যে ক্ষমাপ্রার্থনা করে।
আর দেবশ্রী বললেন, ‘‘ওঁকে তো আমায় জেতানোর দায়িত্ব দিয়ে পাঠিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী। ক্ষমা চাইবার কী আছে!’’
বিজেপি-র হয়ে সম্প্রতি ময়দানে নেমেছেন শোভন-বৈশাখী জুটি। প্রায় প্রতিদিনই দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন প্রত্যন্ত এলাকায় সভা এবং পদযাত্রা করছেন তাঁরা। বৃহস্পতিবার যেমন গিয়েছিলেন রায়দিঘিতে। সেখানেই শোভন বলেন, গতবার ওই বিধানসভা কেন্দ্রে দেবশ্রীকে জেতানোর জন্য তিনি ‘ক্ষমাপ্রার্থী’। বস্তুত, দেবশ্রীকে শুধু জেতানোই নয়। তৃণমূলের অন্দরে ওয়াকিবহালরা জানেন, ২০১৬ সালে রায়দিঘিতে দেবশ্রীর আবার টিকিট পাওয়াও হয়েছিল শোভনের সৌজন্যেই। ২০১১ সালে প্রবল মমতা-ঝড়ে সিপিএমের কান্তি গঙ্গোপাধ্যায়কে হারিয়ে রায়দিঘিতে জিতেছিলেন দেবশ্রী। কিন্তু মধ্যবর্তী বিভিন্ন সময়ে, বিশেষত আয়লার পর এলাকার বিধায়ককে সেখানে দেখা যায়নি বলে জনমানসে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল। ফলে দলের একাংশে এমন দাবিও উঠেছিল, যাতে দেবশ্রীকে রায়দিঘিতে দ্বিতীয়বার টিকিট না-দেওয়া হয়।
Report by web desk
Reported on – 21/01/2021

Share this News
error: Content is protected !!